প্রচ্ছদ >> রাজনীতি

এবার কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন এস কে সিনহার

আলফা নিউজ ডেস্ক: কানাডার দি স্টার জানিয়েছে, গত ৪ জুলাই ফোর্ট এরি সীমান্ত হয়ে সিনহা কানাডায় প্রবেশ করেন এবং সেখানে তার রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন জমা দেন। টরন্টো থেকে প্রকাশিত কানাডিয়ান কুরিয়ার জানিয়েছে, সিনহার সঙ্গে তার স্ত্রী সুষমাও কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন। এর আগে গতবছর ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়ে আবেদন করেছিলেন এস কে সিনহা। নিউ জার্সিতে ছোট ভাই অনন্ত কুমার সিনহার নামে কেনা একটি বাড়িতেই তিনি থাকছিলেন। কানাডায় করা রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদনে বাংলাদেশে এই সাবেক প্রধান বিচারপতি ষোড়শ সংশোধনীর রায় নিয়ে সরকারের সঙ্গে টানাপড়েনের প্রসঙ্গ টেনেছেন বলে জানিয়েছে দি স্টার। সিনহা সেখানে দাবি করেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৭ সালের ২ জুলাই এক বৈঠকে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী নিয়ে মামলায় ‘সরকারের পক্ষে’ রায় দিতে বলেছিলেন তাকে। কিন্তু তাতে রাজি না হওয়ায় তাকে দেশ ছাড়তে হয়েছে। এ বিষয়ে দি স্টারকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসকে সিনহা বলেন, “আমাকে টার্গট করা হয়েছে কারণ বিচারক হিসেবে আমি ছিলাম একজন অ্যাকটিভিস্ট। আমি যেসব রায় দিয়েছি তাতে আমলাতন্ত্র, প্রশাসন, রাজনীতিবিদ, এমনকি সন্ত্রাসীরাও ক্ষিপ্ত হয়েছে। আমি এখন নিজের দেশেই অবাঞ্ছিত।” এস কে সিনহার অভিযোগের বিষয়ে কানাডায় বাংলাদেশ হাই কমিশনারের প্রতিক্রিয়া জানতে চেয়েছিল দি স্টার। হাই কমিশনার মিজানুর রহমান তাদের বলেছেন, “দেশ ছাড়ার পর থেকেই তিনি (সিনহা) সরকারের সম্পর্কে এ ধরনের বক্তব্য দিয়ে আসছেন, যেগুলো সঠিক নয়। তার দেশে ফেরার ক্ষেত্রেও কোনো বাধা বা হুমকি নেই। “এসব কথা তিনি বলছেন শুধু তার রাজনৈতিক আশ্রয়ের দাবি পোক্ত করার জন্য।” ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় এবং কিছু পর্যবেক্ষণের কারণে ক্ষমতাসীনদের তোপের মুখে ২০১৭ সালের অক্টোবরের শুরুতে ছুটিতে যান তখনকার প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা। পরে বিদেশ থেকেই তিনি পদত্যাগপত্র পাঠিয়ে দেন। তিনি বিদেশ যাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে দুর্নীতি, অর্থ পাচার, আর্থিক অনিয়ম ও নৈতিক স্খলনসহ সুনির্দিষ্ট ১১টি অভিযোগ পাওয়ার কথা সুপ্রিম কোর্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছিল। তবে সরকারের তরফ থেকে তখন বলা হয়েছিল, দুর্নীতির অভিযোগ থাকলে তা দুদক দেখবে। দেড় বছরের বেশি সময় তদন্তের পর গত ১০ জুলাই এস কে সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করে দুদক; ফারমার্স ব্যাংকের ঋণ জালিয়াতি করে চার কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয় সেখানে। দুর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করে আসা সাবেক বিচারপতি সিনহা গতবছর যুক্তরাষ্ট্রে বসে একটি বই প্রকাশ করেন। সে সময় তিনি দাবি করেন, তাকে পদত্যাগে বাধ্য করে নির্বাসনে পাঠানো হয়েছে, এ কারণে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক আশ্রয়ের আবেদন করেছেন। বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
FacebookMySpaceTwitterDiggDeliciousStumbleuponGoogle BookmarksRedditNewsvineTechnoratiLinkedinMixxRSS FeedPinterest
Pin It

ট্রাফিক সপ্তাহে ৯ দিনে ৬ কোটি টাকা জরিমানা আদায়

সম্পাদকীয় |  মঙ্গলবার, 14 আগস্ট 2018
আলফা নিউজ ডেস্ক: পুলিশ সদর দপ্তরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার...
Read More

গাড়ি চলে সূর্যের আলোয়

প্রযুক্তি-1 |  মঙ্গলবার, 17 সেপ্টেম্বর 2013
সৌরশক্তিচালিত গাড়িসূর্যের আলো গাড়ির শক্তি জোগাবে। গাড...
Read More

তারেক যেখানেই লুকিয়ে থাকুক, শাস্তি হবে: শেখ হাসিনা

সম্পাদকীয় |  শনিবার, 11 মে 2019
আলফা নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাজ্য সফরের শেষ পর্যায়ে বৃহস্পতিব...
Read More

সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকেই কম কাপড় পড়েছি: পুনম

সম্পাদকীয় |  সোমবার, 22 জুলাই 2013
বিনোদন ডেস্ক : এ সময়কার খোলামেলা অভিনেত্রী হিসেবে বেশ...
Read More

ঢাকায় পুলিশের ‘ডিজিটাল কার পার্কিং’

সম্পাদকীয় |  বুধবার, 10 এপ্রিল 2019
আলফা নিউজ ডেস্ক: সচিবালয়ের পাশে আব্দুল গণি রোডে ডিএম...
Read More

'লাইক' বাণিজ্যের আন্তর্জাতিক কেন্দ্র ঢাকা

প্রযুক্তি-1 |  মঙ্গলবার, 14 জানুয়ারী 2014
ফেসবুক 'লাইক' বলুন আর টুইটার 'ফলোয়ার'_ দুটোর প্রতিই মান...
Read More
এই বিভাগের সর্বশেষ আপডেট