প্রচ্ছদ >> সম্পাদকীয়

সব আদালত কক্ষে জাতির জনকের প্রতিকৃতি প্রদর্শনের নির্দেশ

আলফা নিউজ ডেস্ক: এক রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের বেঞ্চ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেয়। সেই সেঙ্গ একটি রুল জারি করেছে আদালত। আদালত কক্ষে জাতির জনকের প্রতিকৃতি সংরক্ষণ ও প্রদর্শনে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা কেন ‘বেআইনি এবং আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত’ ঘোষণা করা হবে না- তা জানতে চাওয়া হয়েছে ওই রুলে। আইন সচিব, গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব, অর্থ সচিব, সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল এবং হাই কোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রারকে এর জবাব দিতে বলা হয়েছে। আর আদালত কক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি টাঙানোর নির্দেশনা বাস্তবায়নে কতটা অগ্রগতি হল, তাও ওই দুই মাসের মধ্যে জানাতে বলেছে হাই কোর্ট। সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সুবীর নন্দী দাস গত ২১ অগাস্ট হাই কোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ রিট আবেদন করেন। বৃহস্পতিবার আদালতে তিনিই আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার। আদেশের পর সুবীর নন্দী দাস সাংবাদিকদের বলেন, “ভারত, পাকিস্তান, আমেরিকাসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের আদালতে তাদের জাতির জনক বা জাতীয় বীরদের ছবি টাঙানোর নজির আছে। আমাদের সংবিধানে জাতির জনকের প্রতিকৃতি সংরক্ষণ ও প্রদর্শনের বাধ্যবাধকতা থাকলেও তা মানা হচ্ছে না। তা চ্যালেঞ্জ করেই আমরা রিট করেছিলাম।” সংবিধানের ৪(ক) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে- “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতি রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, স্পীকার ও প্রধান বিচারপতির কার্যালয় এবং সকল সরকারি ও আধা-সরকারি অফিস, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, সংবিধিবদ্ধ সরকারি কর্তৃপক্ষের প্রধান ও শাখা কার্যালয়, সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশের দূতাবাস ও মিশনসমূহে সংরক্ষণ ও প্রদর্শন করিতে হইবে।” ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এবিএম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার বলেন, “জাতির পিতার প্রতিকৃতি সংরক্ষণ ও প্রদর্শন আইন অনুযায়ী কেবল ধর্মীয় উপাসনালয় ছাড়া সব প্রতিষ্ঠানে জাতির জনকের প্রতিকৃতি প্রদর্শন ও সংরক্ষণ করার বাধ্যবাধকতা আছে। আইন প্রণেতারা সেখানে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ছাড়া কোনো জায়গা বাদ দেননি। তাই আদালত কক্ষেও প্রদর্শন করার বাধ্যবাধকতা আছে।”বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
2019-09-14-05-50-32 আলফা নিউজ ডেস্ক:শুক্রবার তিনি দায়িত্বভার গ্রহণ করেন বলে ডিএমপির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়। পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক পদমর্যাদার কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম বিদায়ী কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়ার স্থলাভিষিক্ত হলেন। ২৮ অগাস্ট স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে শফিকুল ইসলামকে ডিএমপি কমিশনারের দায়িত্ব দেওয়ার কথা জানানো হয়। এর আগে বাংলাদেশ পুলিশের সিআইডির প্রধান হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন...
     
 
এই বিভাগের সর্বশেষ আপডেট